Breaking News

এ কেমন ঘটনা ! সন্তানের প্রতিশোধ নিলো এক মা। যা দেখলে আপনি অবাক হয়ে যাবেন।

শুকনো একটি গাছের কোটরে। বাসা বাঁধার সিদ্ধান্ত নিয়েছে একটি কাঠবিড়ালি। একজোড়া কৃষ্টাল পাখি সাথে আরো একটি পেঁচা। যার কারণে তাদের মধ্যে বাসা টির জন্য দফায় দফায় ঝগড়া হতো। তো চলুন শুরু থেকে দেখে আসা যাক। কৃষ্টাল দম্পতির ডিম পাড়ার সময় ঘনিয়ে আসায়। তারা একটি বাসার সন্ধানে এদিক ওদিক ঘুরে বেড়াচ্ছ। এভাবেই খুঁজতে খুঁজতে স্ত্রী পাখিটি একটা শুকনো গাছের কোটরে বাসা বাঁধার সিদ্ধান্ত নেয়। আর তারা দুজনেই খুব ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ করছে বাসাটি।

পাখিটির পর্যবেক্ষণ শেষ হলে উড়ে চলে যায়। আর রাত হলে একটি স্ত্রী পেঁচা এই গুপটির ভিতরে ঢুকে পড়ে। কারণ সেও ডিম পাড়ার জন্য একটি উপযুক্ত বাসার সন্ধানে ছিলো। রাত পোহালে সেও ‍উরে চলে যায় ।এদিকে সকাল হতে না হতেই একটি কাঠবিড়ালি মুখে করে নানা ধরনের খরকুটো লতাপাতায় এনে বাসা বাঁধা শুরু করেন। এভাবে কাঠবিড়ালি যখন বাসা ভাধা নিয়ে ব্যস্ত। তখনই ওই পেঁচাটি ঘুরে এসে বাসার মুখে বসে এ অবস্থা দেখে কাঠবিড়ালি প্রচন্ড রেগে যায়।যার কারনে সে এভাবেই পেঁচা টিকে. বাসা টির মুখ থেকে তাড়িয়ে দেয়।

তারপর পেঁচাটি আবার রাতের বেলায় তার বাসায় আসে। ভিতরে ঢুকে কাঠবিড়ালটি দেখে সে বয়ে চলে যায়।এই পরিস্থিতিতে কাঠবিড়ালি বাসা ত্যাগ করে কারণ সে বুঝতে পারে এই গোরটি তার বাসা বাঁধার জন্য উপযুক্ত নয়। এভাবে কয়েকদিন পর আবারও ওই ক্রিস্টাল পাখিটি ছুটে আসে এই গুপটিতে কারণ সে আর দুেই একদিনের ভিতরে ডিম পাড়তে বসবে। সে এসে বাসার মধ্যে সকল খর কোটা পরিষ্কার করে নেয়। কারণ সে এসবের ওপর ডিম পারবে না। আরে কৃষ্টাল পাখির ডিম পাড়ার আগে তার বাসায় একটি কাক এসে তাড়া দেয়।

আর সে এভাবেই তার প্রতিবাদ করে। কাকটি মূলত এই কৃষ্টাল পাখিটির ডিম চুরি করতে এসেছিল। গরটি ভালোভাবে পরিষ্কার করার পর সে ডিম পাড়তে বসে। দুইদিনের মধ্যে সে একটি ডিম পাড়া শেষ হয়।তার মধ্যেই ওই পেচাটি এই ভাষার মধ্যে চলে আসে।বাশার মুখের মধ্যে এসে পেশাটিকে আটকে দিতে চাইলে সে জোরপূর্বক ভাবে বাসার ভিতরে প্রবেশ করে এবং ঝগরা শুরু হয়ে যায়। এক পর্যায়ে প্রচন্ড ঝগড়া হয়। কিন্তু শেষমেশ ক্রিস্টাল পাখিটি পেঁচা কে তাড়িয়ে দিতে সক্ষম হয়।কৃষ্টাল পা কেটে আরো দুই দিনের মাথায় আরো একটি ডিম পাড়ে।

সে তো শুধু তার সংসার নিয়ে চিন্তা করলে হবে না সেতু তার খাবার জোগাড় করতে হবে। তাই সে এভাবেই বাসার ডিমগুলো রেখে খাবার জোগাড় করার জন্য বাহিরে চলে যায়। আর সেই সুযোগটি কাজে লাগাই ওই দুষ্টু কাকটি সে ভিতরে ঢুকে একটি ডিম খেয়ে নেয়। তখন ওই ক্রিস্টাল পাখিটি বাসার মধ্যে ঢুকে দেখতে পেল একটি ডিম ভাঙ্গা অবস্থাই এই অবস্থা দেখে সে খুবই কষ্ট পেল। এভাবেই সে ডিমগুলোর সামনে বসে কি যেন চিন্তা করছিল পাখিটি। এভাবেই সে কষ্ট ভরা মন নিয়ে ডিমের খোসা টি বাইরে ফেলে আসলো।

পরের দিন এসে আবার ডিম পাড়তে বসে এই অবস্থায় কাটতে আবারও তার ভাষায় আক্রমণ করে ।কিন্তু এবার আর এই কৃষ্টাল পাখিদের কাছ থেকে জীবন্ত অবস্থায় ফেরত যেতে দেয়নি তাকে সেখানেই মেরে ফেলে। এইদিকে পুরুষ কৃষ্টাল পাখিটি একবার ও তার স্ত্রী এবং ডিমগুলোর খবর নিতে আসেনি।সে হয়তো এগুলোর দায়িত্ব নিতে নারাজ। এভাবে কৃষ্টাল পাখিটি মোট পাঁচটি ডিম পাড়ে। এভাবেই পুরুষকে স্টারবাক ইতি বাসার মধ্যে আসলে স্ত্রী খ্রিস্টান পাখিটি অভিমান করে তাকে তাড়িয়ে দেয়।

সে রাতে আবারো পেঁচার আক্রমণে একটি ডিম ফেটে যায়। এভাবে কয়েক দিন যাওয়ার পর পুরুষ ক্রিস্টাল পাখিটি বাসার মধ্যে আসলে তাকে দায়িত্ব দিয়ে স্ত্রী কৃষ্টাল পাখিরে বাহিরে চলে যায় 18 থেকে 20 দিন পর তাদের একটি বাচ্চার জন্ম গ্রহন করল। এভাবে আস্তে আস্তে আস্তে প্রত্যেকটি ছানা ফুটতে থাকে এবং তারা এগুলোকে সকল ধরনের হামলা থেকে বড় করে থাকে।এভাবেই এছাড়া গুলোর মধ্যে 10 15 দিনের মাথায় নতুন প্রজন্ম যতই দিন যাচ্ছে ছানাগুলো বেড়ে উঠছে তার খাবার চাহিদা দিন দিন বেড়ে যাচ্ছে। তাদের খাবারের কোন কমতি ছিল না তাদের বাবা-মা।

Check Also

অভিনব পদ্ধতিতে বিষ ও যন্ত্র ছাড়া খুব সহজে ইদুর মারার ফাঁদ বানানো যায়, একবার দেখলে আপনি বানাতে পারবেন। রইলো ভিডিও সহ স্টেপ বাই স্টেপ

নিজস্ব প্রতিবেদন: ইঁদুর একটি চতুর ও নীরব ধ্বংসকারী স্তন্যপায়ী প্রাণী। ইঁদুর প্রাণীটি ছোট হলেও ক্ষতির …