Breaking News

খুব সহজে বাসায় খাঁটি চেপা শুটকি তৈরি করুন, গুনে মানে হবে একদম পারপেক্ট রইল স্টেপ বাই স্টেপ পদ্ধতি ভিডিও।

নিজস্ব প্রতিবেদন: শুটকি অনেকেরই একটি প্রিয় খাবার। বিশেষ করে গ্রামের মানুষেরা শুটকি বেশি পছন্দ করে । অনেকে শুটকি কিনে খায় আবার অনেকে আছেন যারা নিজেরাই শুটকি তৈরি করে খায়। শুটকি তৈরি করার কিছু নিয়ম কানুন আছে যেগুলো জানা থাকলে খুব সহজেই শুটকি তৈরি ও সংরক্ষণ করা যায়।

পদ্ধতি: চ্যাপা শুঁটকির কাঁচামাল তথা পুঁটিমাছ বাছাই কালে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। এক্ষেত্রে নষ্ট, পচা বা আংশিক পচা মাছ ব্যাবহার করা যাবে না। সদ্য আহরণ করা মাছ সংগ্রহ করতে হবে এবং পরিবহণের সময় বরফ দিয়ে পরিবহণ করতে হবে।সংগ্রহ করা মাছকে যথাযথভাবে পরিচর্যা করতে হবে। যেমন আকার অনুযায়ী মাছ বাছাই করা, টিউবওয়েলের পরিষ্কার পানি ব্যাবহার করা, মাছ কাটাই-বাছাই করার সময় ঠাণ্ডা স্থানে রাখা এবং প্রয়োজনে বরফ ব্যাবহার করা, কর্মীদের হাত-পা পরিষ্কার আছে কি না তা নিশ্চিত করা ইত্যাদি।

মাছ কাটাই বাছাই করার পর পুনরায় টিউবওয়েলের পরিষ্কার পানি দিয়ে ধুতে হবে এবং পরিষ্কার প্লাস্টিকের পাত্রে বা পলিথিন কাগজের উপর রাখতে হবে।পরিষ্কার পাত্রে মাছের তেল নিষ্কাশন ও সংরক্ষণ করতে হবে।মাটিতে বা ঘাসের উপর বা মাটির উপর পাটিতে বা চাটাইয়ে রেখে মাছ শুকানো যাবে না।মাছ শুকানোর জন্য অবশ্যই মশারী জাল দিয়ে ঢাকা উঁচু মাচা ব্যাবহার করতে হবে।মাছকে খুব ভাল করে শুকাতে হবে, যাতে মাছের দেহে পানির পরিমাণ শতকরা ১৬-১৮ ভাগে নেমে আসে।কোন পর্যায়েই কোন প্রকার ক্ষতিকর রাসায়নিক পদার্থ যেমন কীটনাশক, ফরমালিন ইত্যাদি ব্যাবহার করা যাবে না।

চ্যাপা শুঁটকি প্রস্তুত করার সময়: সঠিক ভাবে শুকানো পুঁটিমাছের শুঁটকি সংগ্রহ করতে হবে।খেয়াল রাখতে হবে শুঁটকি যেন পোকা আক্রান্ত না থাকে এবং ভাঙ্গাচোরা শুঁটকিমাছ পরিহার করতে হবে।সংগৃহীত বা তৈরিকৃত শুঁটকি বেশীদিন সংরক্ষণ না করে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব চ্যাপাশুঁটকি উৎপাদনের কাজে ব্যাবহার করতে হবে।যদি সংরক্ষণের প্রয়োজন পড়ে তাহলে পলিথিনের বস্তায় সংরক্ষণ করতে হবে।

মাছের তেল দিয়ে মটকা ভেজানোর আগে তেল ভালভাবে ফুটিয়ে ঠাণ্ডা করে ব্যাবহার করা উচিৎ এতে তেলে থাকা জীবাণু ধ্বংস হবে ও চ্যাপা শুঁটকিতে ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণ হ্রাস পাবে।হাড়ির ভিতর শুঁটকি ভর্তি করার সময় কোন ভাবেই পায়ে মাড়ানো যাবে না।ছোট মটকা বা হাড়িতে হাত দিয়ে বা লাঠির অগ্রভাগে কাপড়ের শক্ত কুণ্ডলী বানিয়ে চেপে চেপে শুঁটকি ভরতে হবে।প্রয়োজনে পরিষ্কার লবণসহ হাড়িতে শুঁটকি সাজিয়ে ভর্তি করতে হবে। একান্তই যদি পায়ে মাড়িয়ে শুঁটকি ভরতে হয় তবে অবশ্যই পা পরিষ্কার করে পরিষ্কার পলিথিন কাগজে মুড়িয়ে পায়ে মাড়ানো যেতে পারে।

মাটির হাড়ির মুখ ভালভাবে বায়ুরোধী করে বন্ধ করে গাঁজন প্রক্রিয়ার জন্য ঠাণ্ডা ও শুষ্ক স্থানে রাখতে হবে এবং মাঝে মাঝে বায়ুরোধী করা অংশ পরীক্ষা করে দেখতে হবে কারণ মাটি দিয়ে বায়ুরোধী করা অংশ বেশী শুকিয়ে গেলে ফেটে যায় ফলে এর ভেতরে বাইরের বাতাস প্রবেশ করার সম্ভাবনা থাকে। তাই কয়েকদিন পর পর সিল করা অংশটি লেপে দিতে হবে।গাঁজন সম্পন্ন হওয়ার পর পণ্যকে বায়ুরোধী পলিথিন প্যাকেটে ভরে সংরক্ষণ ও বাজারজাত করতে হবে। এতে ইঁদুর-বিড়াল ও পোকা-মাকড়ের আক্রমণ এবং অণুজীব সংক্রমণ ও জলীয় বাষ্প শোষণ থেকে পণ্যকে সহজেই রক্ষা করা সম্ভব হবে। এতে ক্রেতাগণ পণ্য কিনতে অধিক আগ্রহী হবে, ভোক্তার সংখ্যা বাড়বে এবং গৃহিণীরাও রান্নাঘরে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করবে।

বিস্তারিত ভিডিওতে দেখুনঃ

Check Also

ডুবার পানি শুকিয়ে যাওয়ায় আটকে গেল বড় মাছ, তিন বালক দারুন কায়দা করে ধরল, ভাইরাল সেই ভিডিও!

নিজস্ব প্রতিবেদন: প্রাচীনকাল থেকেই বাঙালি জাতি কে মাছে ভাতে বাঙালি বলা হয়। বাঙালি মাছ খেতে …