Breaking News

জানুন দেশের নম্বর ওয়ান বিজনেসম্যান রতন টাটা কত সম্পত্তির মালিক

রতন টাটাকে চেনে না এরকম ব্যক্তি এই বিশ্বে নেই বললেই চলে। তিনি একজন সফল ব্যবসায়ী। দেশে বিদেশে সর্বত্রই তিনি পরিচিত। তিনি তার জীবনে অনেক সম্মান এবং খ্যাতি অর্জন করেছেন। রতন নেভাল টাটা, একজন ভারতীয় বিনিয়োগকারী এবং টাটা গ্রুপের প্রাক্তন চেয়ারম্যান। টাটা গোষ্ঠীকে বিশ্বে একটা জায়গায় নিয়ে যেতে তিনি অনেক সংগ্রাম করেছেন।

রতন নেভাল টাটা তার জীবনে অনেক কঠোর পরিশ্রম করেছেন।যার ফলশ্রুতিতে তিনি আজ এত সুন্দর জীবনযাপন করছেন। এরকম জীবন প্রায় প্রতিটি মানুষই কামনা করে। তিনি তার অনেক ব্যবসাকে বিস্তার করেছেন। যার মধ্যে ডেইবু মোটরস, কোরাস গ্রুপ, জাগুয়ার এবং ল্যান্ড রোভারের ট্রাককে কিনেছেন। এরপর ২০০৯ সালে টাটা ন্যানোও বাজারে এসেছিল।

তিনি অনেক গ্রুপ কিনেছেন এবং আজ তিনি কোটি টাকার মালিক। আজ আমরা এই আর্টিকেলের মাধ্যমে রতন টাটার মোট সম্পদের সম্পর্কে আপনাদের জানাবো।টাটা গ্রুপের প্রাক্তন চেয়ারম্যান রতন টাটার সম্পদের পরিমাণ প্রায় ৭৪১৬ কোটি টাকারও বেশি। রতন টাটা মুম্বাইয়ের কোলাবায় সমুদ্র সৈকতের কাছে নির্মিত একটি সুন্দর বাংলোতে থাকেন।

তেরো হাজার বর্গফুট জুড়ে বিস্তৃত তার এই বিলাসবহুল তিনতলা বাংলো। বাংলোটিতে পার্টির জন্য অনেক সুবিধা রয়েছে যেমন সূর্যের ডেক, লিভিং এরিয়া, জিম, লাইব্রেরি, সুইমিং পুল ইত্যাদি।সংসারের সব বিলাসিতা পেয়েও তিনি সাদাসিধে জীবনযাপন করেন।তার মার্সিডিজ বেঞ্জ, রোভার ফ্রিল্যান্ডার, রেঞ্জ রোভার, জাগুয়ার, ক্রিসলার সেব্রিং-এর মতো অনেক দামি গাড়ি রয়েছে।

গাড়ির পাশাপাশি তিনি বাতাসে উড়তেও খুব পছন্দ করেন। ফাইটার জেটের প্রতি তার খুব আগ্রহ রয়েছে।এছাড়া রতন টাটা সামাজিক কাজের জন্যও অনেক পরিচিত। ২০০৮ সালে রতন নেভাল টাটা পদ্মভূষণ পুরস্কারে সম্মানিত হয়েছিলেন।তার ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে যদি বলি, তিনি ১৯৩৭ সালে সুরাট শহরে জন্মগ্রহণ করেছিলেন।

রতন নেভাল টাটা শিমলা থেকে তার স্কুলিং করেছেন। তার দাদী তাকে দত্তক নিয়েছিলেন। তাঁর ঠাকুমা তাকে দত্তক নিয়েছিলেন। তার ঠাকুরদা ছিলেন নওয়াজবাই টাটা। যার মৃত্যুর পর তার ঠাকুমা তাকে দত্তক নিয়েছিলেন। রতন টাটাকে দত্তক নেন। রতন তার ঠাকুমার কাছেই বড় হয়েছিলেন।

Check Also

শুধুই কি হাসির পাত্রী! রাণু মন্ডলের কাহিনী চোখে জল আনবে

‘রাণু মন্ডল’ (Ranu Mondal), নামটি বললেই পাঠকরা নিশ্চিত ভাবে বলবেন, “আবার ওই পাগলীর কথা!”। কেউ …