Breaking News

ভারতেই রয়েছে পৃথিবীর সবথেকে বড়ো বট বৃক্ষ, গাছটির জন্ম তারিখ জানলে হবেন অবাক

কলকাতার (Kolkata) আচার্য জগদীশ চন্দ্র বসু বোটানিক্যাল গার্ডেনে একটি বটগাছ রয়েছে, যেটির বয়স 250 বছর। এই গাছটি বিশ্বের সবচেয়ে বড় বটগাছ (The Great Banyan) হিসেবে পরিচিত। আজ অবধি একজন মানুষকে বিশ্বরেকর্ড করতে দেখা গেছে হয় তিনি তার ফিটনেস নিয়ে বিশ্ব রেকর্ড গড়েছেন অথব তার শিল্পের কারণে তাকে বিশ্ব রেকর্ডের খাতায় নথিভুক্ত করা হয়েছে। তবে এবার একটি গাছ তার বয়সের কারণে বিশ্ব রেকর্ডে নথিভুক্ত হয়েছে। তাহলে জেনে নেওয় যাক এই গাছের কথা।

এই গাছ কবে লাগানো হয়েছিল? এই বিশাল বটগাছটি কলকাতার আচার্য জগদীশ চন্দ্র বসু বোটানিক্যাল গার্ডেনে (Acharya Jagadish Chandra Bose Indian Botanic Garden) অবস্থিত। এখানেই ১৭৮৭ সালে এই গাছটি প্রতিষ্ঠা হয়েছিল। তখন তার বয়স ছিল প্রায় কুড়ি বছর। এটি দেখে আপনি অনুমান করতে পারবেন না যে এটি কেবল একটি গাছ।

এই একটি গাছে ৮০ প্রজাতির বেশি পাখি,১৪,৫০০ বর্গমিটার জুড়ে বিস্তৃত এই গাছটি প্রায় ২৪ মিটার উঁচু। একে বিশ্বের সবচেয়ে চওড়া গাছ বা ‘ওয়াকিং ট্রি’ও বলা হয়। জেনে অবাক হতে হয় যে এই গাছে ৮০ টিরও বেশি প্রজাতির পাখি বাস করে।

ঝড়ের কারণে শিকড় দুর্বল হয়েছে পড়ে,১৮৮৪ এবং ১৯২৫ সালে কলকাতায় আঘাত হানা ঘূর্ণিঝড় বটগাছের ব্যাপক ক্ষতি করেছিল। যার কারণে তাদের কেটে ফেলতে হয়। আজ এটি বোটানিক্যাল গার্ডেনের একমাত্র বড় গাছ, যদিও আপনি এই পার্কে সারা বিশ্ব থেকে আনা শত শত বিদেশী উদ্ভিদ প্রজাতি দেখতে পাবেন।

গাছের পরিচর্যার জন্য একটি দল গঠন করা হয়েছে-,১৯৮৭ সালে, ভারত সরকার এই বড় বনের সম্মানে একটি ডাকটিকিটও জারি করেছিল। এটি বোটানিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়ার প্রতীক হিসাবেও বিবেচিত হয়। গাছটি ১৩ জনের একটি দল দ্বারা রক্ষণাবেক্ষণ করা হয়। একটা সময়ে এই গাছটিও পরীক্ষা করে দেখা হয়, এটির কোনো ক্ষতি হচ্ছে না।

বাগানের ইতিহাস,বাগানটি আগে থেকেই আচার্য জগদীশ চন্দ্র বসু ইন্ডিয়ান বোটানিক গার্ডেন নামে পরিচিত ছিল না। ২০০৯ সালে বাগানটির নতুন নামকরণ করা হয় এবং তারপর প্রাকৃতিক বিজ্ঞানী জগদীশ চন্দ্র বসুর সম্মানে এর নামকরণ করা হয়। ১৭৮৭ সালে, ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির কর্নেল রবার্ট কিড মশলা, চায়ের মতো বাণিজ্যিকভাবে কার্যকর উদ্ভিদ প্রজাতির বৃদ্ধির একমাত্র উদ্দেশ্য নিয়ে বাগানটি প্রতিষ্ঠা করেন।

Check Also

গ্রামের এক কৃষকের জীবন্ত আস্ত বাছুর খেয়ে মহা বিপদে অজগর। মাঝ গলায় আটকে যাওয়ায় গ্রামবাসি সবাই আটকে দিয়েছে অজগরটিকে। ভাইরাল ভিডিও

নিজস্ব প্রতিবেদন:সাপ হাত-পা বিহীন দীর্ঘ শরীরের, মাংসাশী, ধূর্ত এক প্রকার সরীসৃপ। এদের চোখের পাতা এবং …