Breaking News

শিশুকে দ্রুত ঘুম পাড়ানোর সহজ কৌশল!

শিশুর চোখে ঘুম, তাও কি চাইলেই পাওয়া যায়? তার জন্য চাই ঠিকঠাক পরিবেশ। প্রতিটি শিশুই আলাদা। তাদের ঘুম, খাওয়ার অভ্যাসও আলাদা। অনেক শিশুই আছে, যারা রাতে ঘুমায় না। অনেকে আবার পাঁচ ঘণ্টার টানা ঘুমে রাত কাবার করে দেয়।

শিশুদের ২৪ ঘণ্টায় কতক্ষণ ঘুমানো উচিত, কীভাবে ঘুম পাড়াবেন— প্রথম থেকেই এ বিষয়গুলো জানা থাকলে সুবিধা। কারণ, নবজাতক একটু ঘুমালে মায়েরও বিশ্রাম নেওয়ার সুযোগ তৈরি হয়। নবজাতকের ঘুমানোর অভ্যাস,নবজাতক দিন ও রাতের মধ্যে পার্থক্য বোঝে না। যেহেতু ঘুম তাদের বিকাশের জন্য গুরুত্বপূর্ণ, তাই দিনরাত তার ঘুমের রুটিনের সঙ্গে নিজেকে মানিয়ে নিন।

কিছু শিশু শরীরে মৃদু চেপে থাকা নরম পোশাক পছন্দ করে। বিশেষ করে শীতের সময় এটা খেয়াল করুন। গরমে কাপড়ের কারণে যাতে ঘেমে না যায়। তাহলে ঠান্ডা বসে সর্দি-কাশি এমনকি নিউমোনিয়া হতে পারে। সাধারণত নবজাতকের দিনে ১৬ ঘণ্টা ঘুমের প্রয়োজন। রাতে ৮ থেকে ৯ ঘণ্টা এবং দিনে ৮ ঘণ্টা—এভাবে ঘুমাতে পারে তারা।

তিন মাসের শিশুর ঘুমের অভ্যাস,এই সময় শিশুরা খাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ঘুমিয়ে পড়ে না। তাই তাকে বিছানা বা দোলনায় ঘুমানোর অভ্যাস করতে ঘুমপাড়ানি গান গাইতে পারেন। তিন মাসের শিশুর সাধারণত প্রায় ১৫ ঘণ্টা ঘুমের প্রয়োজন। রাতে ৯ থেকে ১০ ঘণ্টা এবং দিনের বেলা ৪ থেকে ৫ ঘণ্টা ঘুমাতে পারে।

এ সময়ে রুটিন বেঁধে তার দেহঘড়ি নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করুন। রাত নামলেই ঘরের আলো কমিয়ে দিন। পরিবারের অন্য সদস্যদের জোরে কথা বলতে বারণ করুন। প্রতি রাতে নির্দিষ্ট সময়ে তাকে ঘুমানোরা চেষ্টা করুন। কুসুম গরম পানিতে গোসল, উষ্ণ খাবার, ডায়াপার পরিবর্তন করে তার ঘুমানোর ব্যবস্থা করুন। কিছু শিশু কোলবালিশ জড়িয়ে ঘুমাতেও পছন্দ করে।

ছয় মাসের শিশুর ঘুমের অভ্যাস,শিশুকে ঘুমের মধ্যে খাওয়ালে বারবার ডায়াপার ভিজিয়ে ফেলে। ফলে মাঝরাতে ঘুম ভেঙে যেতে পারে। সারা রাত ঘুমানোর মতো যথেষ্ট বিরতি দিয়ে শিশুকে খেতে দেওয়া উচিত। আপনার ছয় মাসের শিশুর সাধারণত প্রায় ১৪ ঘণ্টা ঘুমের প্রয়োজন। এর মধ্যে রাতে ১০ ঘণ্টা এবং দিনের বেলা ৪ ঘণ্টা দরকার।

রাতে শিশু কান্না করলে তার কান্নার আওয়াজের দিকে মনোযোগ দিন। বুঝার চেষ্টা করুন, সে ব্যথা পাচ্ছে বা না কি ভয় পেয়ে কানছে। যদি এমনটি মনে হয়, তাহলে প্রশান্তিমূলক (যেমন: শ…. শ….) শব্দ বা হালকা ম্যাসাজ দিয়ে শান্ত করার চেষ্টা করুন। বিছানা থেকে তুলে নেবেন না। দেখবেন অল্প সময়ের মধ্যেই সে ঘুমিয়ে যাবে।

এক বছরের শিশুর ঘুমের অভ্যাস,এই বয়সী শিশুর ঘুমের সময় যতই এগিয়ে আসবে, ততই তার স্বাধীন হওয়ার অভ্যাস বা লক্ষণ অদৃশ্য হতে থাকবে। যেমন, যে শিশু দিনে দুধ বা স্যুপ খায় কাপ বা গ্লাসে, সে রাতে (ঘুমানোর সময় হলে) বোতল (ফিডার) চাইতে পারে। এই সময় খুব মজার বা উত্তেজনাকর কিছু করা থেকে বিরত থাকুন। তবে ঘুমপাড়ানির গল্প বলা ভালো।

ঘুমানোর সময় তাকে একটু বেশি আদর দিন। কোলে নিয়ে মৃদু দোলাতে থাকুন। আদুরে কথা বলুন। এভাবে তাকে বোঝানোর চেষ্টা করুন, এখন ঘুমের সময়। এক বছর বয়সী শিশুর প্রায় ১৪ ঘণ্টা ঘুমের প্রয়োজন। রাতে ১১ ঘণ্টা এবং দিনে ৩ ঘণ্টা ঘুমানোর চেষ্টা করুন। শিশুদের টেলিভিশন চলে এমন কক্ষে ঘুমিয়ে রাখা ভালো নয়। শিশুর নিজের বিছানায় একা ঘুমাতে অভ্যস্ত করা ভালো। তবে অবশ্যই শিশুর বিছানার কাছাকাছি থাকুন।

Check Also

জীবনে খারাপ সময় আসবেই, ভেঙে না পড়ে এই ১০টি কথা মনে রাখুন কাজে লাগবে

নিজস্ব প্রতিবেদন সাফল্য অর্জনের দুর্গম পথ পাড়ি দেওয়ার সময় আম’রা এমন অবস্থার সম্মু’খীন ও হই …